আত্মনির্ভর ভারতের নিজস্ব ভিডিও বৈঠকি অ্যাপের আশু প্রয়োজনীয়তা

India Science & Technology

সায়ন্তন টাট , জাঙ্গিপাড়া : দীর্ঘ লকডাউনে ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপের দরুন মানুষের কাজের গতি মন্থর হলেও স্তব্ধ হয়নি । বেশিরভাগ পরিষেবা ক্ষেত্রের কর্মীরা “ওয়ার্ক ফ্রম হোম” এর মাধ্যমে তাদের যাবতীয় কাজ চালিয়ে গেছেন । আর এতে তাদের সাহায্য করেছে জুম , স্কাইপ , ওয়েবেক্স মত আমেরিকান কোম্পানীরা । মূলত মার্চ মাসের পর থেকে স্কাইপের জনপ্রিয়তাকে টপকে ‘জুম’ নামক অ্যাপটি ভয়ানক রকম ভাবে জনপ্রিয় হয়ে উঠে ভারতবাসীর কাছে । কিন্তু শীঘ্রই এর বিরুদ্ধে চীনকে তথ্য পাচার করার অভিযোগ ওঠে । তাই তড়িঘড়ি মিনিস্ট্রি অফ হোম আফেয়ারস জুম অ্যাপ নিরাপদ নয় বলে ঘোষণা করে । প্রসঙ্গত বলে রাখি চীন নিজেই এই জুম অ্যাপ কে নিষিদ্ধ করে রেখেছিল নিজের দেশে এবং তার সাথে তাইওয়ান ও সরকারি ক্ষেত্রে জুম অ্যাপ ব্যবহার করার নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল । তাই স্বভাবতই প্রশ্ন ওঠে আত্মনির্ভর ভারতের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ভারত কবে তার নিজস্ব ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ প্রস্তুত করবে ? কারণ ভিডিও কনফারেন্সিং এর প্রয়োজনীয়তা কখনো ব্যবসায়ীক বৈঠকে বা রাজনৈতিক বৈঠকে অথবা শিক্ষা ক্ষেত্রের অনলাইন ক্লাসে সর্বত্রই বিদ্যমান । তাই চীন , আমেরিকা এবং রাশিয়ার মতো ভারতের নিজস্ব ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ অতি আবশ্যক । যদিও মুম্বাইয়ের ইনস্ক্রিপ্ট নামক কম্পানি “সে নমস্তে” নামে ভিডিও কনফারেন্সিং টুল চালু করেছে কিন্তু তা বাজার চলতি অন্যান্য অ্যাপের থেকে অনেক পিছিয়ে । এছাড়াও ভারত সরকারের “ইনোভেটিভ চ্যালেঞ্জ ” নামক ভারতীয় ভিডিও কনফারেন্সিং অ্যাপ প্রস্তুত করার প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয়েছে । কিন্তু তা সময় সাপেক্ষ । সর্বোপরি বলা যায় ভারত সরকার ভারতকে স্বনির্ভর করার যথেষ্ট চেষ্টা করছে শুধু এবার ভারতীয় জনতার জাতীয়তাবোধ দেখাবার পালা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *